“সব প্রমাণ আমা’র মে’য়ের কাছে আছে”, মৃ’ত্যুর আগে নারী ভাইস চেয়ারম্যানের ফেসবুক স্ট্যাটাস

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজে’লা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমিন গতকাল শুক্রবার দুপুরে মা’রা গেছেন। রাজধানীর একটি হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃ’ত্যুবরণ করেন। মৃ’ত্যুর আগে ব্যক্তিগত ফেসবুকে তিনি একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। তার মৃ’ত্যুর পর ওই স্ট্যাটাসটি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

গত ৫ ডিসেম্বর দেয়া স্ট্যাটাসে তিনি তার পরিণতির জন্য তিনজনকে দায়ী করে গেছেন। সময় মতো তাদের নাম তার মে’য়ে প্রকাশ করবেন বলেও জানান। এরআগে ১৫ নভেম্বরের এক স্ট্যাটাসে শরীর খারপ বলে সবার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন।

শুক্রবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃ’ত্যুবরণ করার পর তার ঐ স্ট্যাটাসটি সোস্যাল মিডিয়ায় ভাই’রাল হয়েছে। এ ঘটনায় দোষীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন অনেকেই।

সেলিনা ইয়াসমিনের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডির স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধ’রা হল- ‘আমি বারবার বলছি, আমি বিভিন্নভাবে মানুষের চাপের মুখে আছি। আমিও একজন মানুষ। আমা’রও পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। যদি আমা’র শারীরিক, মানসিক ও অর্থনৈতিক অবস্থা কোনো ক্ষতি হয়, তার জন্য মাত্র তিনজন মানুষ দায়ী থাকবে। সব প্রমাণ আমা’র মে’য়ের কাছে আছে। যথোপোযু’ক্ত সময়ে আমা’র মে’য়ে তা আপনাদের সামনে উপাস্থাপন করবে। মনে রাখবেন শুধু তিনজন মানুষ এই পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। আমা’র ও আমা’র মে’য়ের জন্য সকলে দোয়া করবেন।”

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজে’লা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইস’লাম জানান, ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমিন ঢাকায় চিকিৎসাধীন ছিলেন, শুক্রবার তিনি ই’ন্তেকাল করেছেন।

সেলিনা ইয়াসমিনের চাচাতো ভাই ফুজায়েল ইস’লাম মুহিতের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘আসলে আপু (সেলিনা ইয়াসমিন) ঐ পোস্ট দেওয়ার পরে অ’সুস্থ হয়ে পড়েন, স্ট্রোকও করেন। আলাপ করার মতো অবস্থা ওনার ছিল না। তাই বিশেষ কিছু জানি না।’

সূত্র : ব্রেকিংনিউজ

Check Also

মামুনুল হক আমার বাড়িতে এলে নিজেকে ধন্য মনে করব: নিক্সন চৌধুরী

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক ও তার স’ঙ্গীদের নিজ বাড়িতে দাওয়াত করেছেন ফরিদপুরের …