লজ্জিত দিহানের পরিবার, রাখেননি কোনও আইনজীবীও

দিহানের ভাই নিলয় সরকার তিনি বলেন, সকালে উঠে অফিসে চলে গিয়েছি।

বগুড়াতে আমা’র নানা অ’সুস্থ, মা সেদিন সকালে নানাকে দেখতে বাড়ি থেকে বের হয়েছেন। আমা’র এক চাচা আবার ওইদিনই মা’রা যান। রাজশাহীতে জানাজা হয়েছে। আমা’র বাবা সেখানে ছিলেন। বাসা সেদিন একদম ফাঁকা ছিল।

হঠাৎ দুপুর ১টা ২৫ মিনিটের দিকে দিহান আমাকে ফোন দিয়ে কাঁদো কাঁদো স্বরে কথা বলে। জীবনে ওকে আমি কখনও কা’ন্না করতে দেখিনি। ফোন দিয়ে বলে, ‘ভাইয়া বাসায় বান্ধবীকে নিয়ে এসেছিলাম। অ’জ্ঞান হয়ে গেছে। হাসপাতা’লে নিয়ে যাচ্ছি। তুমি আসো, তুমি ছাড়া আমাকে কেউ বাঁ’চাতে পারবে না।’

দিহানের ভাই আরও বলেন, আমি ভয় পেয়ে যাই। তখনই আমা’র কর্মস্থল থেকে বের হয়ে এসেছি। দিহান বারবার ফোন দিচ্ছে ‘ভাইয়া তুমি দ্রুত আসো।’ পরে দুপুর ১টা ৫০-এর দিকে আবার ফোন করে। তখন বলে, ‘ভাইয়া ও তো মা’রা গেছে’। তখন আমি বলি, ‘কে মা’রা গেল ঠিকঠাক মতো বলো’। দিহান বলে, ‘তুমি হাসপাতা’লে চলে আসো দ্রুত।’

Check Also

ঢাকায় সাত সকালে বৃষ্টি, ভোগান্তিতে মানুষ

ঢাকায় মঙ্গলবার সকাল থেকেই মুষলধারে বৃষ্টি হয়েছে। ভোর থেকেই আকাশ মেঘাচ্ছন্ন ছিলো। হঠাৎ সাতটার পর …