মায়ের নিষেধ উপেক্ষা করে মোটরসাইকেলে ঘুরতে যাওয়া ২ বন্ধুর মৃ’ত্যু!

বছর শেষের রাতে ছে’লে বায়না ধরে মোটরসাইকেলে ঘুরে বেড়ানোর। তবে মা নি’ষেধ করেছিলেন। সেই নি’ষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করাই যেন কাল হলো প্রান্তিকের। স’ঙ্গে বন্ধু আলভীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে ঘুরতে বেরিয়ে অকালে প্রা’ণ দিল দুই মেধাবী।

ঢাকার নবাবগঞ্জে মোটরসাইকেল দু’র্ঘ’টনায় আনজির আহমেদ প্রান্তিক ও আলভী মেহেদী নামে দুই কলেজছাত্র চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা গেছেন। প্রান্তিক (২০) রাজধানীর ধানমন্ডির আইডিয়াল কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের ও আলভী (২০) দোহার-নবাবগঞ্জ স’রকারি কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক ২য় বর্ষের ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন।

নবাবগঞ্জ-ঢাকা আন্তঃমহাসড়কের কাশিমপুরে প্যারাগন হাসপাতা’লের সামনে মোটরসাইকেল দু’র্ঘ’টনায় তারা আ’হত হন পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একদিন পর তাদের মৃ’ত্যু হয়।

জানা যায়, শনিবার ভোরে রাজধানীর একটি বেস’রকারি হাসপাতা’লের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আলভীর মৃ’ত্যু হয়। এর আগে একই দু’র্ঘ’টনায় শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে রাজধানীর আরেকটি বেস’রকারি হাসপাতা’লের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান প্রান্তিক।

নি’হত প্রান্তিক নবাবগঞ্জ উপজে’লার কলাকো’পা ইউনিয়নের বাগমা’রা গ্রামের মহসিন উদ্দিন পলা’শের ছে’লে ও আলভী একই ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের বাসিন্দা ব্যবসায়ী মো. আজমের একমাত্র ছে’লে।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী, জুনিয়র ও মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ পাওয়া মেধাবী প্রান্তিক ও আলভীর অকাল মৃ’ত্যুতে শো’কের মাতম এখন ওদের এলাকাজুড়ে। সব মিলিয়ে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃ’ষ্টি হয়েছে।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে প্রান্তিকের লা’শ তার নিজ বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। শনিবার বেলা ১২টার দিকে নিয়ে আসা হয় আলভীর লা’শ। তাদের লা’শ আসার খবরে এলাকাজুড়ে শো’কের মাতম শুরু হয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, প্রান্তিকের মা বারণ করা সত্ত্বেও বৃহস্পতিবার বছরের শে’ষ রাতে ঘনিষ্ঠ বাল্যবন্ধু আলভীর ডাকে সাড়া দিয়ে বাবার কাছ থেকে মোটরসাইকেলের চাবি নিয়ে ঘুরতে বের হয় দুই বন্ধু। প্রান্তিক মোটরসাইকেল চালাচ্ছিল আর আলভী পেছনে বসা ছিল।

ঘোরাঘুরি শেষে রাত ১১টার দিকে বে’পরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল চা’লিয়ে বাড়ির ফেরার পথে কাশিমপুরে প্যারাগন হাসপাতা’লের সামনের আঞ্চলিক প্রধান সড়কে মোটরসাইকেল নি’য়ন্ত্রণ হা’রিয়ে আরও একটি মোটরসাইকেলকে ধা’ক্কা দিলে তারা ছিট’কে পড়ে গু’রুতর আ’হত হয়।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা তাৎক্ষণিক তাদের উ’দ্ধার করে উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক অবস্থা আ’শ’ঙ্কাজনক দেখে দুজনকেই উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরাম’র্শ দেন। সেখান থেকে তাদের রাজধানীর দুই হাসপাতা’লে নেওয়া হয়।

এ বি’ষয়ে নবাবগঞ্জ থা’নার উপপরিদ’র্শক মো. লিয়াকত জানান, দু’র্ঘ’টনার পরপরই পু’লিশ ঘ’টনাস্থল পরিদ’র্শন করে ও দু’র্ঘ’টনা কবলিত মোটরসাইকেলটি জ’ব্দ করে। তবে দু’র্ঘ’টনার বি’ষয়ে থা’নায় কেউ কোনো অ’ভিযোগ করেনি।

নি’হতের বন্ধু সাব্বিরসহ আরো কয়েকজন জানান, প্রান্তিক ও আলভী যেমনি ছিল মেধাবী তেমনি নম্র-ভদ্র। ওদের মতো বন্ধু পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। এক কথায় ওরা ছিল অ’সাধারণ। ওরা যে এখন আমাদের মাঝে নেই বি’ষয়টি আম’রা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছি না।

স্থানীয় ও প্রতিবেশীরা জানান, প্রান্তিক ও আলভী ছিল অ’ত্যন্ত বিনয়ী। এক কথায় অমায়িক ও অ’সাধারণ। তাদের মৃ’ত্যু কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছেনা এলাকাবাসী ও স্বজনরা।

Check Also

প্রথম সন্তান কন্যা হওয়ায় গৃহবধূকে তাড়িয়ে দিলো স্বামীর পরিবার

এক বছরের সংসার জীবনে ছেলে সন্তান উপহার দিতে পারেনি। তাই গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে রোকসানা খাতুন (২৩) …