পাকিস্তানে এক ডিমের দাম ৩০ রুপি, আদার কেজি হাজার!

পাকিস্তানে মুদ্রাস্ফীতির কারণে সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে চলে গেছে জিনিসপত্রের দাম। দৈনন্দিন নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনতেও হিমশিম খাচ্ছেন অনেকে। করোনা সঙ্কটের মধ্যেই নতুন করে নাজেহাল হয়ে পড়েছে দেশটির অর্থনৈতিক অবস্থা। দেশটিতে একটি ডিম বিক্রি হচ্ছে ৩০ রুপিতে। অর্থাৎ এক ডজন ডিমের জন্য খরচ করতে হচ্ছে ৩৫০ রুপি।

শীত মৌসুমের কারণে পাকিস্তানে ডিমের চাহিদা বেড়েছে। অপরদিকে এক কেজি চিনির দাম ১০৪ রুপি। এক কেজি গম ৬০ রুপি এবং এক কেজি আদার দাম ১ হাজার রুপি। জিনিসপত্রের দাম এভাবে বাড়তে থাকায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বিপদে পড়েছেন। দেশের অর্থনীতির হাল ফেরানোর প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন ইমরান। কিন্তু এখন এই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারছেন না তিনি।

কয়েকদিন আগে ইমরান চিনির দাম কমানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু বর্তমানে পাকিস্তানের মুদ্রাস্ফীতি অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে ফেলেছে। এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শীতের কারণে দেশের বিভিন্ন স্থানে ডিমের দাম অনেক বেড়ে গেছে। এখন সেখানে প্রতি ডজন ডিম ৩৫০ পাকিস্তানি রুপিতে বিক্রি হচ্ছে। পাকিস্তানে বর্তমানে ২৫ শতাংশের বেশি মানুষ দারিদ্র সীমার নিচে বাস করেন। এ সব মানুষের প্রায় সবারই খাদ্য তালিকায় ডিম থাকে, এখন সেটাও নাগালের বাইরে।

গত বছরের ডিসেম্বর থেকে পাকিস্তানে আর্থিক মন্দা শুরু হয়েছে। সে সময় ৪০ কেজি গম কিনতে দুই হাজার রুপি খরচ করতে হয়েছে। চলতি বছরের অক্টোবরে এই রেকর্ড ভেঙেছে। বর্তমানে প্রতি কেজি গম বিক্রি হচ্ছে ৬০ রুপিতে অর্থাৎ ৪০ কেজি গমের দাম ২৪শ রুপি।

Check Also

মমতার বাড়ি নেই, গয়নাও ১ ভরির কম

ভা’রতের রাজনীতিতে বিভিন্ন পর্যায়ে দু’র্নী’তিতে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে যখন দেশের অনেক নেতা জর্জ’রিত তখন এক ব্যতিক্রমী …