দৌড়ে এসে শিতের সকালে আল্লামা মামুনুল কে জড়িয়ে ধরে কান্না শুরু করলেন পুলিশ ইন্সপেক্টর

দৌড়ে এসে শিতের সকালে আল্লামা মামুনুল কে জড়িয়ে ধরে কান্না শুরু করলেন পুলিশ ইন্সপেক্টর, এমনি একটি দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ভাইরাল হয়, এই দৃশ্যটি কোথা তাতখনিক আমার জানতে পারি নাই, এই ভাইরাল পোস্টের কিছু মন্তব্য আপনাদের সামনে তুলে ধরতেছি…

অধিকাংশ পুলিশ কর্মকর্তা এ ভালোবাসে,, আলেমদের কে,,, কিন্তু প্রকাশ করতে পারেনা,,, কিছু নাম ধারি মোসলমানদের জন্য,,,নাম ধারি মোসলমানরা ক্ষমতার জন্য আজকে তারা ইসলাম কে ভুলে গেছে,,

বেশি সংখ্যক খারাপের মধ্যে অল্প সংখ্যক লোক ভালো থাকতে পারে না। অন্যান্য দেশের বিপদগামী লোকেরা প্রশাসনের কাছে যায় সহযোগিতার আশা করে।আর আমাদের দেশের সাধারণ জনগণ পুলিশ প্রশাসন দেখলে দৌড়ে পালাবার উপক্রম হয়।মানে হলো প্রশাসনের কাছে তারা নিজেকে হেফাজত মনে করে না।

রক্ষক যদি ভক্ষক হয় তাহলে জনগণের উপায় থাকে না।আবার এক শ্রেণীর লোক এই প্রশাসন দ্বারা খুব ভালো আছে ক্ষমতা খাটিয়ে। যাই হোক আমাদের সকলেরি পরকালে গমন করতে হবে এটাই চরম বাস্তব পরকালে যেনো আমরা ঠকে না যাই।তাই সকলের বিবেক বিবেচনা প্রয়োগ করে কাজ করা উচিত। আল্লাহ সকলকে হেদায়েত দান করুক আমিন।
যারা প্রকৃত মুসলমান তারা আলেমদের প্রতি শ্রদ্ধার সঙ্গে কথা বলবে কারন এই কথা আমাদের মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম বলেছেন যে তোমরা হক্কানী আলেমদের সাথে শ্রদ্ধার সঙ্গে কথা বলতে।

ভাই বাংলার সকল মানুষ,,আল্লামা মামুনুল হক সাহেব এর জন্য জীবন দিতে রাজি। পলিশ, রেব, সেনাবাহিনী। এবং বাংলার সকল ধরনের মানুষ।। কিন্তু কিছু কিছু হাই লেভেল এর মানুষ এর চাপে তারা এমন টা করতে বাধ্য হয়।আবার অনেক এ আছে, জারা সরকার কে তেল মারার জন্য আমন টা করে।

Check Also

তরুণীকে তুলে নিয়ে মৃত প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে!

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে এক তরুণীকে জোর করে তুলে নিয়ে সিঁদুর পরিয়ে মৃ’ত প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে …