চাবি দিয়ে খুঁ’চি’য়ে দুই চোখ ন’ষ্ট করার পরও মিলছে না রেহাই

জমি নিয়ে বি’রো’ধের জের ধ’রে প্র’তিপক্ষ মোটরসাইকেলের চাবি দিয়ে খুঁ’চি’য়ে ন’ষ্ট করে দিয়েছে সোহাগ খান নামে এক যুব’কের দুই চোখ। এ ঘটনায় চার ভাইয়ের বি’রু’দ্ধে মামলা দায়ের হলেও দুজন এখনও পলা’তক, বাকি দুজন জামিনে বেরিয়ে এসে দিচ্ছে প্রাণনাশের হু’ম’কি। চোখ হা’রা’নো যুব’ক এখন পরিবার নিয়ে আছে প্র’চ’ণ্ড আ’ত’ঙ্কে। পরিবারসহ সোহাগ সংবাদ সম্মেলন করে তার চোখ তুলে নেওয়ার মামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবি করেছেন।

দোষীদের গ্রেফতার দাবিতে সোমবার দুপুরে বরিশাল প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন ভু’ক্তভো’গী সোহাগ খান ও তার পরিবারের সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে দোষীদের দৃষ্টা’ন্তমূলক বিচার দাবি করা হয়। সোহাগ নগরীর মোহাম্মদপুর এলাকার সেকান্দার আলী খানের ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে সোহাগ জানান, ৪ ডিসেম্বর নগরীর হাটখোলা কসাইখানা এলাকায় একটি হোটেলে সকালের নাশতা করছিলেন তিনি। এ সময় তার ওপর হা’ম’লা চা’লিয়ে চারজন মিলে চে’পে ধ’রে। এর মধ্যে একজন মোটরসাইকেলের চাবি দিয়ে খুঁচিয়ে দুই চোখ ন’ষ্ট করে দেয়। স্বজনরা গুরু’তর অবস্থায় প্রথমে তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল হাসপাতালে নেন। সেখান থেকে তাকে রাজধানীর জাতীয় চ’ক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে পাঠান চিকিৎসকরা। আ’ঘা’তের কারণে সোহাগ দৃ’ষ্টিশ’ক্তি হা’রিয়ে ফে’লেছে।’

এ ঘট’নায় চারনের বি’রু’দ্ধে কোতোয়ালি থা’নায় মামলা করেন সোহাগের ভাই মাসুম খান। এর মধ্যে দুজনকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও তারা জা’মিনে মুক্তি পেয়ে হু’ম’কি দিচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

নগরীর হাটখোলা হকার্স মার্কেট এলাকায় সরকারিভাবে বরাদ্দ করা ৩ শতাংশ খাস জমি নিয়ে ওই এলাকার মোবারক সিকদার ও তার চার ছেলের সঙ্গে সোহাগ এবং তার পরিবারের বি’রো’ধ চলছিল। এরই জের ধরে সোহাগের ওপর হা’ম’লা করে চোখ ন’ষ্ট করে দেয়ার অ’ভিযো’গ করা হয়।

এ ব্যাপারে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান বলেন, এ ঘট’নায় ৪ ডিসেম্বর থানায় মা’মলা হয়। দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বাকিদেরও গ্রেফতারে অভি’যান অব্যাহত রয়েছে।

Check Also

বাস স্ট্যান্ডের পাশে পড়েছিল বস্তাভর্তি টাকা

নাটোরের বড়াইগ্রামে বনপাড়া বাজারে পাবনা বাস স্ট্যান্ডের পাশে পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি টাকার বস্তা পাওয়া গেছে। …