এক লাখ ৮১ হাজার টাকা নিয়ে এফডিসি ছাড়ছেন মোল্লা

প্রায় পাঁচ দশক ধরে বিএফডিসিতে ঝালমুড়ি বিক্রি করা আবদুল মান্নান (মোল্লা) বাড়ি ফিরবেন। তার এই বাড়ি ফেরায়

যেমন আনন্দ আছে, তেমনই আছে দুঃখ। কারণ তার শেষ সময়ে ছিল ভিন্ন আয়োজন। এফডিসিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে

মোল্লার মুড়ি উৎস। এফডিসিতে দীর্ঘ প্রায় অর্ধশতাব্দী ধরে আব্দুল মান্নান মোল্লা মুড়ি বিক্রি করে আসছেন। তার মুড়ি

খাননি এমন কোনো নায়ক-নায়িকা ও কলাকুশলী নেই। চলচ্চিত্রের দুর্দশায় সিনেমা নির্মাণের সংখ্যা কমে যাওয়া এবং

এফডিসির ব্যস্ততা না থাকায় মোল্লার মুড়ি ব্যবসা চলছে না। জীবিকাও চালাতে পারছে না। ফলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এই

ব্যবসা ছেড়ে দেশে চলে যাবেন। তার এই বিদায়কে কেন্দ্র করে তাকে সহায়তা করার জন্য এগিয়ে আসেন কয়েকজন তরুণ সাংবাদিক।

২৯ থেকে ৩১ জানুয়ারি চলে সেই উৎসব। সেই আয়োজনে শোবিজের অনেকেই মোল্লার বাড়ি ফিরতে পাশে

দাঁড়িয়েছেন। আয়োজনে মোল্লার বাড়ি ফিরতে উঠেছে মোট এক লাখ ৮১ হাজার ৭০০ টাকা। আয়োজন-সংশ্লিষ্ট এক সাংবাদিক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

১৯৭২ সালে কুমিল্লা জেলার মনোহারগঞ্জ থানার মির্জাপুর গ্রাম থেকে ঢাকায় আসেন মোল্লা। বিনা-বেতনের খাদেম হিসেবে কাজ করেন এফডিসির মসজিদে। এরপর শুরু করেন এফডিসিতে মুড়ি বিক্রি।

আবদুল মান্নান বলেন, নায়ক রাজ্জাক, শাবানা, আলমগীর, মান্না, সালমান শাহ, শাবনূর তারা সবাই আমার মুড়ি

খেতেন। মান্না মারা যাওয়ার কারণে আমার অনেক ক্ষতি হয়েছে। মান্না আমাকে অনেক সহযোগিতা করেছে। মান্না মারা যাওয়ার পর কেউ সহযোগিতা করেনি।

তবে এফডিসি থেকে বিদায় নেয়ার আগে তিনি ভাবেননি এত ভালোভাবে বাড়ি ফিরতে পারবেন। কাল-পরশুর মধ্যেই বাড়ি কুমিল্লা চলে যাবেন তিনি।

Check Also

বাড়ি তৈরির কাজ প্রসঙ্গে সংবাদে বিব্রত সানাই

‘আমার বাবা একটি বেসরকারি ব্যাংকের সাবেক উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম)। তার নিজস্ব অর্থায়নে রংপুরে আমাদের পৈতৃক সম্পত্তিতে …