অ’ভিযানের সময় নিজের স্ত্রী’’র ফোনও রিসিভ করেন না ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম

র‌্যা’­বের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। যোগদানের পর থেকেই খাদ্য, ওষুধ থেকে শুরু করে নিত্যপণ্যের গুণগত মান, ভে’জাল দ্রব্য,

হাসপাতা’লে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষুধ, অ’তিরিক্ত ফি নেয়াসহ নানা অ’প’রাধের বি’রু’দ্ধে অ’ভি’যান চালিয়ে আসছেন তিনি।

বলা যায়, ভেজাল খাদ্যপণ্যের বি’রু’দ্ধে যু’দ্ধ করে যাচ্ছেন এ ম্যাজিস্ট্রেট। এসব কাজ করতে গিয়ে বারবার প্রভাবশালীদের বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন তিনি।

ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম একজন সত্যিকারের পেশাদার অফিসার। ভ্রাম্যমান আ’দালতের অ’ভি’যান পরিচালনার সময় দো’ষীদের পক্ষে সুপারিশ আসতে পারে

ভেবে নিজের স্ত্রী’’র ফোনও রিসিভ করেন না তিনি।ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের অ’ভি’যান প্রসঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ঘটনা শেয়ার করেছেন সারাবাংলা ডটনেটের স্টাফ রিপোর্টার সাদ্দাম হুসেইন।

তিনি লিখেছেন, “গত ১৭ সেপ্টেম্বর হাতিরপুলে ক্ষমতাশীন একজন নেতার নকল ঔষুধের গোডাউনে অ’ভি’যানে চালিয়ে ৫ কোটি টাকার ঔষুধ জ’ব্দ করার সময় আম’রা কয়েকজন সাংবাদিক সেখানে ছিলাম।

সে সময় কোনো এক কথার প্রসঙ্গে ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার ভাই আমাদের বলছিলেন, ‘অ’ভি’যান চলাকালে আমি আমা’র আত্মীয় স্বজন তো দূরের কথা,

নিজের স্ত্রী’র ফোনও ধরি না। কারণ, দেখা যাবে অ’প’রাধীদের কেউ না কেউ আমা’র আত্মীয়ও হতে পারে। তারা হয়তো আমা’র স্ত্রী’কে

দিয়েও আমা’র কাছে সুপারিশ পাঠাবে অ’প’রা’ধীকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য। কিন্তু সেটা তো আমি করতে পারবো না!”

ওই সাংবাদিক আরও লেখেন, ‘কথাটি কিন্তু কথার কথা কিংবা নিজেকে সাংবাদিকদের সামনে ভালো সাজাতে বলেননি তিনি।

কারণ কতটা সৎ সাহস নিয়ে দেশের প্রতি টান থাকলে এ কথা তিনি বলতে পারেন তার বহু উদাহ’রণ আমাদের জানা।

তালবাহা’না করলে নি’র্বাচন ক’মিশন ঘে’রাও করব: জা’হাঙ্গীর

নির্বাচন কমিশনকে উদ্দেশ করে ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেছেন, আপনারা একচোখা হবেন না।

আম’রা যেখানে প্রো’গ্রাম দেয় প্রশাসনকে জানিয়ে দেই। আওয়ামী লীগ এখানে প্রো’গ্রাম দেয়। নির্বাচন কমিশন তালবাহা’না

করলে আম’রা নির্বাচন কমিশন ঘেরাও করব। সোমবার (২৬ অক্টোবর) উত্তরার ১০ ও ১১নং সেক্টরে গণসংযোগ শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ৫০নং ওয়ার্ডে আমাদের পূর্বনির্ধারিত গণসংযোগ ছিল। আওয়ামী স’ন্ত্রাসীরা সেখানে ধানের শীষের নেতাকর্মীদের ও’পর হা’মলা করছে।

আম’রা এ ন্যা’ক্কারজনক হা’মলার তীব্র নি’ন্দা জানাই। হা’মলা করে আমাদের আ’ন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। নেতাকর্মীদের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে ধানের শীষের পক্ষে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যেতে হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভা’রপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান নির্দেশ দিয়েছেন আম’রা মাঠে আছি, মাঠে থাকব।

আম’রা সব র’ক্তচক্ষু উপেক্ষা করে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে থাকব। জয় নিয়ে ঘরে ফিরব ইনশাআল্লাহ। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াই, ভোটের লড়াই চলছে, চলবে।

এ সময় নেতাকর্মীরা খালেদা জিয়ার ভয় নাই রাজপথ ছাড়ি নাই, ভোট কিসে, ধানের শীষে, মা বোনদের বলে যাই ধানের শীষে ভোট চাই ইত্যাদি স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করে পুরো এলাকা।

গণসংযোগে বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, স্বা’স্থ্য বি’ষয়ক সহ সম্পাদক ডা. রফিকুল ইস’লাম,

Check Also

তরুণীকে তুলে নিয়ে মৃত প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে!

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে এক তরুণীকে জোর করে তুলে নিয়ে সিঁদুর পরিয়ে মৃ’ত প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে …